কূটনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নের দিকে নজর আ. লীগের

পিএন২৪ ডেস্ক – আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দল ও নির্বাচনি মাঠ গোছানোর পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কূটনেতিক সম্পর্ক উন্নয়নের দিকে নজর দিচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এ লক্ষ্যে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে বিভিন্ন দেশে সফর করবে দলের কয়েকটি টিম। বাংলাদেশে সফরে আসা বিদেশি প্রতিনিধি দলের সঙ্গেও বৈঠক করবে ক্ষমতাসীন দল।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, বর্তমান সরকারের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক ভালো। এ কারণে বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে। এসব দেশ সফর করলে তাদের  সঙ্গে বর্তমান সরকারের কূটনৈতিক সম্পর্ক আরও বেশি জোরদার হবে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) নিউ ইয়র্কে যাচ্ছেন। সেখানে তিনি জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র প্রধানের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।।

প্রধানমন্ত্রীর সফর সম্পর্কে দলটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ সারাবিশ্বে একটি আত্ম-মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের গুরুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই বিভিন্ন দেশ বা সরকার বাংলাদেশের ক্ষমতাসীনদের আমন্ত্রণ জানাচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ খুব দ্রুত সময়ে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ হচ্ছে স্বল্প উন্নত দেশগুলোর কাছে উন্নয়নের রোল মডেল। সেই দেশের প্রতি বিভিন্ন দেশের আগ্রহ থাকাই স্বাভাবিক। বিভিন্ন দেশের আমন্ত্রণ এটাই প্রমাণ করে বাংলাদেশ আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।’

প্রধানমন্ত্রীর সফরের তিন দিন পর ১৯ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের ১৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে বেইজিং যাবে।  সেখানে তারা ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকবে। এ সফরে তারা চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবে। ১৯ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কর্নেল (অব.) ফারুক খান।

চীন সফর সম্পর্কে  ফারুক খান বলেন, ‘চীনের কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে আমরা সেখানে যাবো। এ সফরে দুই দলের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। আলোচনায় বাংলাদেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় প্রাধান্য দেওয়া হবে।বাংলাদেশে চীনের বিনিয়োগ কিভাবে বাড়ানো যায়, সেই চেষ্টা থাকবে আমাদের।’

এদিকে সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশে সফরে আসছে ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টির একটি প্রতিনিধি দল। আগামী ২১ সেপ্টেম্বর ওই প্রতিনিধি দলটি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে দলের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। বৈঠকে কী কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে, তার একটি খসড়াও তৈরি করা হয়েছে।

ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টির সঙ্গে বৈঠক প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য বলেন, সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশে বৈঠকের আলোচনার বিষয়বস্তু ঠিক করা হচ্ছে। দুই দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ের পাশাপাশি দুই দলের সম্পর্কোন্নয়নের বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে।

ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি’র আমন্ত্রণে সেদেশে সফরে যাবে আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল। জানা গেছে, এই আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বিজেপি’র সভাপতি অমিত শাহ। তার পাঠানো আমন্ত্রণ পত্র আওয়ামী লীগের হাতে এসে পৌঁছেছে। সফরের তারিখ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। আগামী অক্টোবর মাসে এ সফরটি হতে পারে।  এদিকে দলের একটি সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে আট সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ভারত সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

দলটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ বলেন,  ‘এসব সফরের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক আরও  জোরদার হবে।’ তিনি বলেন, ‘ কূটনৈতিকভাবে বাংলাদেশের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের যে সুসম্পর্ক আছে, এই সফরগুলো তারই প্রমাণ। এসব সফরে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড ও রোহিঙ্গা ইস্যুটি তুলে ধরা হবে।’|

এক প্রশ্নের জবাবে শাম্মী আহমেদ বলেন, ‘নির্বাচন হচ্ছে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। আওয়ামী লীগ সরকার অবশ্যই একটা সুষ্ঠু নির্বাচন করতে বদ্ধপরিকর। নির্বাচন নিয়ে বিদেশিদের কোনও হস্তক্ষেপ আমরা কখনও কামনা করি না।’

দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘এই সফরগুলোর মধ্যদিয়েই বাংলাদেশের প্রতি সারাবিশ্বের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝা যায়। জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর সফরের ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবেই চীন সফর এবং ভারত সফর।’

পালংনিউজ টুয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।